বাংলাদেশ মঙ্গলবার 26, March 2019 - ১২, চৈত্র, ১৪২৫ বাংলা - হিজরী

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ৭ মাসের শিশু কন্যাকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশিত ২৪ অগাস্ট, ২০১৬ ১৯:২৮:০৬


মোহাম্মদ নুর উদ্দিন/ খন্দকার আলাউদ্দিন: চুনারুঘাটে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ৭ মাসের শিশু ইফা আক্তারকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো এক শিশু। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মা-দাদীসহ ৩ জনকে আটক করেছে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই ঘাতক পিতা পলাতক রয়েছে। আটককৃতরা হলো নিহত শিশুর মা মিলন বেগম (৩৫), দাদী খুদেজা বেগম (৫০) ও একই গ্রামের প্রতিবেশী মর্ত্তুজ আলী (৫০)। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চুনারুঘাট উপজেলার জারুললিয়া গ্রামের সোহেল মিয়ার সাথে দীর্ঘদিন যাবত পুকুরে মাছ ধরা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে লিটন মিয়ার। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বেশ কয়েকবার সংর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এদিকে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে সোমবার ভোর রাতের যেকোন এক সময়ে লিটন মিয়া তার ৭ মাসের শিশু কন্যা ইফা আক্তারকে কুপিয়ে হত্যা করে। এ সময় পাশে ঘুমিয়ে থাকা অপর শিশু রিফা আক্তার কেদে উঠলে পাষন্ড পিতা তাকেও কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে। বিষয়টি সকালে জানাজানি হলে আত্মীয় স্বজনরা আহত অবস্থায় শিশু রিফাকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। প্রথমে ঘাতক লিটন মিয়া পাড়া প্রতিবেশীকে জানায় প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের কন্যাকে হত্যা করেছে। এদিকে গুরুতর আহত অবস্থায় শিশু রিফাকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে সে উপস্থিত পুলিশ ও গণমাধ্যম কর্মীদের জানায় তাদেরকে তাদের পিতা ধারালো অস্ত্রদিয়ে আঘাত করেছে। এরপর পুলিশ বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান চালায়। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্রসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় তারা আশপাশের লোকজনের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলাপ করেন। এর কিছুক্ষন পরই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ নিহতের মা মিলন বেগম দাদী খুদেজা বেগম ও প্রতিবেশী মর্ত্তুজ আলীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। থানায় নিহতের মা মিলন বেগমকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছ এবং ঘটনার সর্ম্পকে বিস্তারিত জানিয়েছে তবে তদন্তের স্বার্থে পুলিশ বিষয়টি প্রকাশ করছে না। অপর একটি সূত্রে জানা গেছে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটক মা মিলন বেগম ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন এবং ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নির্মলেন্দু চক্রবর্তী জানান, ঘটনার সাতে জড়িত থাকার অভিযোগে মা-দাদী ও অপর একজনকে আটক করা হয়েছে। থানায় তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তিনি বলেন ঘটনারমুল নায়ক লিটনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। আশাকরি দ্রুত তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। তিনি জানান এ ব্যাপারে পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।হবিগঞ্জসমাচার


footer logo

 ঢাকা অফিস
GA-99/3  Pragati sharani
Gulshan Dhaka 1212
ই-মেইল:- info@bdnationalnews.com

.